ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কীভাবে শিখবো? How to learn freelancing?

ফ্রিল্যান্সিং জিনিসটা নতুনদের জন্য একটু কঠিন মনে হতে পারে। কেউ কেউ ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য নিজের চাকরিতে পর্যন্ত ছেড়ে দিচ্ছে। ফ্রিল্যান্সিং কিছু অতিরিক্ত অর্থ উপার্জন করার জন্য বা একটি নতুন ক্যারিয়ার দাড় করানোর জন্য একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে। ফ্রিল্যান্সিং এর অনেক ধরন থাকতে পারে, তাই এটি কোথা থেকে শুরু করবেন তা জানা সবসময় সহজ হয় না। যাইহোক, এটি সত্যিকার অর্থে একটি ফলপ্রসূ অভিজ্ঞতা হতে পারে। এটি ডিজিটাল লাইফের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কাজগুলির মধ্যে একটি। 

এই আর্টিকেলটিতে, আমরা আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে আপনার যা জানা দরকার তার ব্যাপারে কিছু আইডিয়া দিব: যেমন- এটি কী, সর্বাধিক জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং চাকরিগুলো, কীভাবে দূরের কোনো কাজ খুঁজে পাওয়া যায় এবং নিজের ব্র্যান্ডিং কীভাবে করা যায়। তাই আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে আগ্রহী হোন তাহলে এই তথ্য আশা করি আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে সাহায্য করবে।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং হল এমন এক ধরনের কাজ যেখানে আপনি কোন কোম্পানিতে যুক্ত না হয়ে বরং স্বাধীনতা অনুযায়ী কাজ করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সাররা প্রায়শই বিভিন্ন ধরণের কাজ করে এবং কখনও কখনও একই সময়ে বেশ কয়েকটি প্রজেক্টে কাজ করে। আপনি যদি আপনার নিজের ক্যারিয়ারের উপর আরও নিয়ন্ত্রণ রাখতে চান বা আপনি যদি আপনার কাজের সময়সূচীতে আরও নমনীয়তা খুঁজছেন তবে এটি একটি দুর্দান্ত বিকল্প উপায় হতে পারে।

ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কীভাবে শিখবো?

ফ্রিল্যান্সিং এর মূল সুবিধাগুলো কি কি?

ফ্রিল্যান্সিং হতে পারে আপনার ক্যারিয়ারে এগিয়ে যাওয়ার, সাথে কিছু অতিরিক্ত অর্থ উপার্জন করার, বা জীবিকার জন্য আপনার পছন্দের কিছু করার একটি দুর্দান্ত উপায়। ফ্রিল্যান্সিং এর কিছু সাধারণ মূল সুবিধা এখানে দেওয়া হলঃ

১. আপনি বাড়ি থেকে বা যে কোনও জায়গায় কাজ করতে পারেন: এটি ফ্রিল্যান্সিংয়ের সবচেয়ে বড় সুবিধাগুলির মধ্যে একটি। আপনি বাড়ি থেকে কাজ করতে পারেন, যার অর্থ আপনি যাতায়াতের সময় এবং অর্থ উভয়ই নষ্ট করা এড়াতে পারেন।
২. আপনার কাজের সময় নিজেই নির্ধারণ করতে পারেন: ফ্রিল্যান্সিং এর আরেকটি বড় সুবিধা হল আপনি নিজের সময় নির্ধারণ করতে পারেন। যার ফলে আপনি আপনার অন্যান্য কাজগুলোও সময়মত পারবেন। তবে এটি আপনার ক্লায়েন্টদের সাথে আপনার চুক্তির উপর নির্ভর করতে পারে, কারণ কেউ কেউ তাদের কাজের জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট সময় বেধে দিতে পারে। যাইহোক, আপনার এই সময় বেধে দেওয়া কাজ করা নিজের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে।
৩. আপনি আপনার নিজের পছন্দের কাজ বেছে নিতে পারেন: একজন ফ্রিল্যান্সার হিসাবে আপনি যে বিষয়ে কাজ করতে চান তা বেছে নেওয়ার স্বাধীনতা রয়েছে৷ এর মানে আপনি আপনার পছন্দের কাজটি বেছে নিতে পারেন। আপনি যদি সময় একটু টাইম মেইনটেইন করা বা ভৌগলিক কিছু বিষয়কে মূল্য দেন তবে এমন প্রকল্পগুলি বাছাই করতে পারবেন যেগুলোর কম সীমাবদ্ধতা রয়েছে।

ফ্রিল্যান্সিং আপনাকে অনেক স্বাধীনতা দিতে পারে যা চাকরি করার ক্ষেত্রে পাওয়া যায় না। আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসাবে শুরু করার কথা ভেবে থাকেন তবে এই মূল সুবিধাগুলি সবসময় মনে রাখবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কীভাবে শিখবো?

সবচেয়ে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিংগুলো কি কি?

এখানে আপনি লেখালেখি, গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট সহ আরও অনেকগুলো কাজ খুঁজে পাবেন। এখানে জনপ্রিয় কিছু কাজের কথা বলা হয়েছে-

  • ব্লগিং/ আর্টিকেল রাইটিং
  • প্রুফরিডিং এবং এডিটিং
  • গ্রাফিক ডিজাইন
  • ভিডিও এডিটিং
  • প্রোগ্রামিং
  • ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
  • সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট
  • ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স ইত্যাদি
আরও পড়ুন:  ব্লগ কি? ব্লগিং কীভাবে শিখবো? How to learn blogging?

কীভাবে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজগুলো খুঁজে পাবেন?

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ খুঁজে বের করার সবচেয়ে সহজ উপায় হল Upwork, Fiverr ইত্যাদি এর মত একটি ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা। এই প্ল্যাটফর্মগুলি ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের একসাথে মেলাতে মার্কেটপ্লেস হিসাবে কাজ করে। এই প্ল্যাটফর্মগুলিতে, আপনি একটি প্রোফাইল তৈরি করতে পারেন এবং ফ্রিল্যান্সিংয়ে আপনার যাত্রা শুরু করতে পারেন। প্ল্যাটফর্মগুলি সাধারণত উপার্জনের কিছু পার্সেন্টেজ কেটে নেবে। কাজ খোঁজার জন্য কয়েকটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট হল:

Upwork-এ ফ্রিল্যান্সিং

UpWork একটি ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম যা ক্রেতাদের সাথে ফ্রিল্যান্সারদের সংযুক্ত করে। UpWork-এ, আপনি একটি প্রোফাইল তৈরি করতে পারেন এবং আপনার পছন্দের চাকরির জন্য আবেদন করা শুরু করতে পারেন। এটি কাজ খোঁজার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলির মধ্যে একটি, এবং এটি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে।

Fiverr-এ ফ্রিল্যান্সিং

Fiverr হল অন্য আরেকটি বড় ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস যা একটি গিগ মডেলে বেশি কাজ করে। এর মানে আপনি একটি নির্দিষ্ট মূল্যের বিনিময়ে আপনার কাজ তালিকাভুক্ত করতে পারেন এবং ক্রেতারা সেগুলি কিনতে আসে। এটাই Upwork এবং Fiverr এর মধ্যে মূল পার্থক্য।

এই প্ল্যাটফর্মগুলিতে সাফল্যের জন্য শুধুমাত্র একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে তারপর এলোমেলোভাবে এপ্লাই করলেই হবে না। এজন্য অনেকেই অভিযোগ করে থাকেন যে এখানে কোনো কাজ পাওয়া যায় না। উভয় প্ল্যাটফর্মেই কাজ করার জন্য আলাদা আলাদা নিজস্ব কিছু নিয়ম রয়েছে। ভবিষ্যতে এ বিষয়ে বিস্তারিত লিখার  চেষ্টা করবো।

ফ্রিল্যান্সার হিসাবে নিজের মার্কেটিং কীভাবে করবেন? একজন ফ্রিল্যান্সার হিসাবে শুরু করার সময়, সেখানে আপনার নাম প্রচার করা এবং নতুন ক্লায়েন্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা কঠিন হতে পারে। এটি করার জন্য একটি উপায় হতে পারে অনলাইনে নিজের উপস্থিতি শক্তিশালী করা৷ এর মধ্যে একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ তৈরি করা, একটি সামাজিক মিডিয়া অ্যাকাউন্ট সেট আপ করা বা এমনকি ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মগুলিও তার জন্য অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কীভাবে শিখবো?

একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার দক্ষতা প্রদর্শন করুন

শুরু করার সময় আপনার কাজগুলো প্রদর্শন করার জন্যএকটি ভালো পোর্টফোলিও তৈরি করা খুবই জরুরি। আপনার দক্ষতা বা নিশ এর উপর ভিত্তি করে একটি পোর্টফোলিও তৈরি করতে Behance, Dribbble, Medium এর মত সাইট ব্যবহার করতে পারেন। আপনি আপনার কাজ প্রদর্শন করতে সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম যেমন Instagram এবং Pinterest বিবেচনা করতে পারেন। প্ল্যাটফর্ম নির্বাচন করুন যেখানে আপনি সম্ভাব্য ক্লায়েন্টদের কাছে পৌঁছাতে পারেন। আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেন এবং সেখানে যদি তাদের একটি পোর্টফোলিও বিভাগ থাকে, তাহলে সেখানেও আপনার কাজ আপলোড করতে ভুলবেন না।

যে কোনও ক্ষেত্রে, একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ তৈরি করা সবসময়ই একটি ভাল ধারণা। একটি পোর্টফোলিও তৈরি করা ছাড়াও, এটি আপনার দক্ষতা প্রদর্শন করে এবং সম্ভাব্য ক্লায়েন্টদের জানাতে দেয় যে আপনি এটি সম্পর্কে ডেডিকেটেড। একটি ওয়েবসাইট থাকলে তা ক্লায়েন্টের বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়িয়ে দেয়। একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা এত বেশি ব্যয়বহুল বা কঠিন কোনো কাজ না বরং দীর্ঘমেয়াদে এটি একটি অত্যন্ত ফলপ্রসূ বিনিয়োগ হতে পারে।

আরও পড়ুন:  নিশ কি? ব্লগিং নিশ কি? নিশ কেন গুরুত্বপূর্ণ।Niche marketing

নেটওয়ার্কিং

নিজের মার্কেটিং করার আরেকটি উপায় হল নেটওয়ার্কিং এবং বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ নেওয়া। এটি আপনাকে সম্ভাব্য ক্লায়েন্ট, সহযোগীদের সাথে দেখা করতে এবং আপনার নৈপুণ্য সম্পর্কে আরও জানতে সাহায্য করতে পারে। যদিও নেটওয়ার্কিং সাধারণত অফলাইনে হয়ে থাকে, কিন্তু সেখানেও অনলাইন গ্রুপ রয়েছে যেখানে আপনি আরও বেশি লোকের সাথে কথা বলা শুরু করতে পারেন। বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপ বা ফোরাম রয়েছে যেখানে আপনি আপনার নেটওয়ার্ক প্রসারিত করতে পারেন। আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হতে পারে অন্য সেক্টরের ফ্রিল্যান্সারদের সাথে নেটওয়ার্ক  তৈরি করা। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি একজন ডিজাইনার হন তবে আপনি ফ্রিল্যান্স লেখকদের সাথে  যোগাযোগ রাখতে পারেন; কারণ আপনার কিছু ক্লায়েন্ট যারা ফ্লায়ার ডিজাইন করতে চাইছেন, তাদের প্রথমে কপিরাইটিং এর সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে। এটি বিপরীতভাবেও প্রযোজ্য, যেখানে একজন লেখক ক্লায়েন্টের কপিরাইটিং সম্পন্ন করার পরে তাদের ডিজাইনের জন্য আপনার কাছে রেফার করতে পারে। এটি একটি রেফারেল নেটওয়ার্ক তৈরি করার সুযোগ।

রেফারেলের খোঁজ করুন

কাজ করে দেওয়ার পর আপনার আগের ক্লায়েন্টদের রেফারেলের জন্য জিজ্ঞাসা করতে ভুলবেন না। এটি নতুন ফ্রিল্যান্সারদের ক্লায়েন্ট পেতে সেরা একটি উপায় হতে পারে। আপনার যদি এমন ক্লায়েন্ট থাকে যারা দীর্ঘদিন ধরে আপনার সাথে আছে এবং আপনি জানেন যে তারা আপনার কাজের সত্যিই প্রশংসা করেন, তাহলে নির্দ্বিধায় তাদের কাছে রেফারেলের জন্য অনুরোধ করুন। এটা খুবই ভালো হবে যদি কিছু ক্লায়েন্ট নিজে থেকেই তাদের পরিচিতিদের আপনাকে রেফার করে। কিন্তু আমরা সবাই আমাদের জীবন নিয়ে ব্যস্ত। কিছুক্ষণের মধ্যে একটি মৃদু অনুস্মারক আপনাকে তাদের মনে রাখতে সাহায্য করতে পারে। এজন্য ক্লায়েন্টর সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি করাও খুব গুরুত্বপূর্ণ।

কীভাবে দক্ষতা ছাড়াই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন?

অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চান, কিন্তু তাদের খুবই সাধারণ প্রশ্ন থাকে, ‘আমার কোন দক্ষতা নেই! কীভাবে শুরু করবো?’ দক্ষতা ছাড়া ফ্রিল্যান্সিং কঠিন হতে পারে, কিন্তু এখানে আপনি কিছু পদক্ষেপ নিতে পারেন। কিছু ফ্রিল্যান্সিং কাজ খুব উচ্চ-স্তরের দক্ষতা ছাড়াই শুরু করা যায়, তবে সেক্ষেত্রে আপনার বেসিক ভাল হওয়া খুবই জরুরি।

আপনার পছন্দের ক্ষেত্র বা নিশ নির্ধারণ করুন

আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আপনি কোন ক্যাটাগরিতে কাজ খুঁজতে করতে চান। অনেকেই নিজের স্পেসিফিক পছন্দের জায়গা খুজে বের করতে পারে না। যদি আপনার আগ্রহের এরিয়া একাধিক থাকে তবে সে বিষয়ে ভালো ভাবে চিন্তা করে কয়েকটির দিকে নজর দেওয়া যেতে পারে।

কাজের গভীরে ঢুকার চেষ্টা করুন

আপনার পছন্দের ক্ষেত্র নিয়ে অনলাইনে আরও গভীরভাবে গবেষণা করুন। একবার আপনার পছন্দের বিষয়ে মোটামুটি ধারণা হয়ে গেলে আপনার কাজের  প্রয়োজনীয় দিকগুলো শিখার চেষ্টা করুন। YouTube একটি নির্দিষ্ট পেশা সম্পর্কে কিছু প্রাথমিক শিক্ষা নিয়ে কাজ শুরু করার জন্য একটি দুর্দান্ত জায়গা। আপনি যদি এই সেক্টরে নতুন হন, তাহলে ঐ কাজ নিয়ে একটু রিসার্চ করলে আপনার এমন কিছু খুজে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে যা আপনাকে ঐ বিষয়ে আরও আগ্রহী করতে পারে বা আপনাকে ঐ কাজ থেকে বিরত রাখতে পারে। আপনি হয়তো আবিষ্কার করতে পারেন যে এই সেক্টর থেকে আপনি যা আশা করেন তা নয়, অথবা আরও স্পেসিফিক কিছু খুজে পেতে পারেন যেটিতে আপনি যেতে চান। উদাহরণস্বরূপ, Digital marketing অত্যন্ত বিস্তৃত, কিন্তু SEO আপনার আগ্রহ হতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট বেশ বড় হতে পারে, তবে শুধু Instagram নিয়ে কাজ করা আপনার আগ্রহের সাথে সবচেয়ে বেশি ফিট করতে পারে।

আরও পড়ুন:  অনলাইন থেকে আয় করার উপায়- দেখে নিন ৭ ধরনের কাজ সম্পর্কে।

অনলাইনে স্কিল শিখুন 

আপনি শিক্ষানবিশ হিসাবে শুরু করার পর আরও বিষদভাবে জ্ঞান অর্জনের জন্য বিভিন্ন অনলাইন কোর্স করতে পারেন। আপনি যদি একজন ডিজাইনার হিসাবে Adobe সফ্টওয়্যারটি কীভাবে ব্যবহার করবেন তা শিখতে চান তাহলে বিভিন্ন ভিডিও দেখে শিখার চাইতে কোনো প্রশিক্ষকের কাছ থেকে শিখা বেশি কার্যকর। আপনি Udemy এবং Skillshare এর মত কোর্স ওয়েবসাইটগুলি থেকে সহজেই সাশ্রয়ী মূল্যের অনলাইন কোর্সগুলি খুঁজে পেতে পারেন৷

ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য একটি পোর্টফোলিও তৈরি করুন

একজন ফ্রিল্যান্সারকে হায়ার করার সময় ক্লায়েন্টরা যেগুলি বিবেচনা করে তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলির মধ্যে একটি হল অতীতের কাজ দেখা৷ ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে বেশির ভাগ সময়েই হায়ার করার সময় কোনও জটিল ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া নেই। তাই ক্লায়েন্ট   বিস্বস্ত হিসাবে কাকে নিয়োগ করতে হবে তা নির্ধারণ করতে প্রমাণিতদের উপর অনেক নির্ভর করছে। আপনার স্থানের উপর ভিত্তি করে, আপনি কোর্স করার সময় করা কিছু ডেমো কাজ সহ একটি পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারেন, শুধুমাত্র ব্যক্তিগত প্রকল্পে কাজ করতে পারেন, অথবা প্রশংসাপত্রের বিনিময়ে বিনামূল্যে বা কম দামে কিছু কাজ গ্রহণ করতে পারেন এবং কিছু অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারেন৷ তারপরে আপনার কাজগুলি প্রদর্শনের জন্য একটি প্রাসঙ্গিক প্ল্যাটফর্মের সাথে একটি ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট বা একটি অ্যাকাউন্ট সেট আপ করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কীভাবে শিখবো?

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন?

অনেকের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু করা একটি কঠিন কাজ হতে পারে। যাইহোক, শুধু জেনে রাখুন যে এখানে আপনার হারানোর কিছু নেই যদি আপনি কাজ করে দেখতে চান। আপনাকে হাল ছেড়ে দিবেন না এবং শুরুতে একটু বেশি সময় দিতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং আপনার নিজের জন্য অর্থ উপার্জন করার একটি দুর্দান্ত উপায়। আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং বিবেচনা করে থাকেন, তাহলে উপরে উল্লেখিত ফ্রিল্যান্সার ওয়েবসাইটগুলি দেখুন এবং শুরু করুন।

ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতা অর্জন করে সফল হওয়ার জন্য নিচের টিপসগুলি খেয়াল করুনঃ

১. আপনার আগ্রহ বা আবেগের সাথে মেলে এমন চাকরি খুঁজুন;

২. অনলাইন এবং অফলাইন চ্যানেলের মাধ্যমে আপনার নাম  প্রচারের শ্রম দিন; এবং,

৩. ভালো কাজ এবং যে কাজগুলো আপনার অন্যান্য কাজ করায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না করে সেইসব কাজ বাছাই করুন।

ফ্রিল্যান্সিং একটি চমৎকার ইনকাম সোর্স হতে পারে। আপনি এর কতটুকু ব্যবহার করতে পারেন তা নির্ভর করছে একান্ত আপনার উপর!

Leave a Comment