এফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং তা থেকে আয় করার উপায়। What is affiliate marketing?

আপনি যদি একজন এফিলিয়েট মার্কেটার হওয়ার কথা ভেবে থাকেন, আপনি সম্ভবত জানেন যে এটি সম্পর্কে অনলাইনে প্রচুর পরিমাণে তথ্য রয়েছে। এই বিষয়ক বিভিন্ন মিথ, গুজব, পাশাপাশি সাফল্যের গল্প, ব্যর্থতা, কেস স্টাডি এবং ইনকামের প্রতিশ্রুতির কোন শেষ নেই। প্রায়শই, কোনটি সত্য এবং কোনটি নিছক হাইপ তা জানা মুশকিল। তাই বিষয়গুলো নিয়ে লিখতে চলেছি কিছু সত্য তথ্যের উপর ভিত্তি করে। তো চলুন এফিলিয়েট মার্কেটিং নিয়ে আলোচনা করা যাক:

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি

এফিলিয়েট মার্কেটিং হল এমন একটি অনলাইন প্রচারনামূলক কাজ যার মাধ্যমে আপনি অন্য কোম্পানির পণ্য বা পরিষেবার অনলাইন প্রচারের জন্য নির্দিষ্ট পার্সেন্টেজ কমিশন উপার্জন করেন। মূলত, অ্যাফিলিয়েটরা কোনো মার্চেন্টের ওয়েবসাইটের জন্য ট্রাফিক বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে একজন মার্চেন্টের পক্ষে অনলাইন মার্কেটিং করে। অর্জিত প্রতিটি ক্লিকের জন্য, অ্যাফিলিয়েটকে মার্চেন্ট দ্বারা অর্থ প্রদান করা হয়।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং তা থেকে আয় করার উপায়

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে কাজ করে?

সাধারণভাবে বলতে গেলে, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা ওয়েবসাইট হোস্ট করে যেখানে তারা বিভিন্ন উপায়ে ব্যবসা এবং ব্র্যান্ডের পক্ষ থেকে বিভিন্ন অফারের বিজ্ঞাপন দেয়, যেমন ব্লগ, ভিডিও, পর্যালোচনা, বিজ্ঞাপন, পণ্যের লিঙ্ক এবং আরও অনেক কিছু। অ্যাফিলিয়েটরা একটি পূর্ব-নির্ধারিত চুক্তির ভিত্তিতে অর্থ পায়, সাধারণত যখন একজন গ্রাহক লিঙ্কে ক্লিক করে (অতএব, পে পার ক্লিক), কিন্তু কখনও কখনও শুধুমাত্র যখন গ্রাহক প্রকৃতপক্ষে পণ্যটি কেনেন (CPA বা Cost per acquisition)। 

আরও পড়ুন:  অনলাইন থেকে আয় করার উপায়- দেখে নিন ৭ ধরনের কাজ সম্পর্কে।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কীভাবে কাজ করে তা এখানে সংক্ষেপে দেখানো হল- 

১.  একটি নিশ চুজ করুন

২. একটি অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে যোগ দিন

৩. পণ্য এবং অফার প্রচার করুন

৪. ট্রাফিক ট্র্যাক করুন

৫. কমিশন পান

কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করবেন?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য প্রথমে এর সম্পর্কে যতটা সম্ভব শিখুন, যার মধ্যে বিভিন্ন টুল এর কাজ যা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা ব্যবহার করছেন। এটা আপনার সৌভাগ্য বলতে পারেন যে বর্তমানে সামাজিক মাধ্যমগুলিতে অনেকগুলি অনলাইন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কমিউনিটি রয়েছে যেখানে আপনি যোগ দিতে করতে পারেন এবং বিভিন্ন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং পডকাস্ট অনুসরণ করতে পারেন যাতে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় স্টার্টার জ্ঞান এবং সহায়তা পেতে পারেন। একটি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হওয়ার জন্য যাত্রার শুরুতে আপনার প্রধান যে বিষয়টি বুঝতে হবে তা হল তা হল: আপনি কোন পণ্যটি বিক্রি করতে চান? তারপরেই আপনাকে তার জন্য একটি উপযুক্ত নিশ বেছে নেওয়ার কথা ভাবতে হবে।

কিভাবে আপনার নিশ (Niche) পছন্দ করবেন?

আপনার অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কার্যক্রমগুলিতে ফোকাস করার জন্য নির্দিষ্ট পন্যের জন্য নির্দিষ্ট কিছু নিশ বা ক্যাটাগরি আপনি বেছে নিতে পারেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা সাধারণত কয়েকটি ভিন্ন বিষয়ের উপর ভিত্তি করে নিশ বেছে নেয়: 

  • নিশ কতটা প্রতিযোগিতামূলক? নিশ এর ট্রাফিক যত বেশি হবে, প্রতিযোগিতা করা এবং ট্রাফিক সাইটে ট্রান্সফার ততো বেশি কঠিন হবে।
  • আপনি আপনার বাছাই করা নিশ সম্পর্কে কত ভাল জানেন? আপনি যে নিশ সাথে পরিচিত তার উপর ফোকাস করা ভাল। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি একজন ফিটনেস ফ্রিক হন তবে আপনি ফিটনেস সম্পর্কিত পণ্য প্রচার করতে পারেন।
  • আপনার নিশ বিষয়ক ব্যাক্তিগত কোনো অভিজ্ঞতা আছে? আপনি যে পণ্যগুলি ব্যবহার করেন তা তূলনামূলক ভাবে প্রচার করা সহজ হবে এবং আপনি কাস্টমারদেরকে বেশি আকৃষ্ট করতে পারবেন। আপনার অভিজ্ঞতা থাকলে ভালো, কিন্তু থাকতেই হবে এরকম কোনো ব্যাপার নয়।
  • আপনি একটি নিশ সম্পর্কে শেখার সময় ব্যয় করতে ইচ্ছুক কিনা যদি আপনি এটির সাথে পরিচিত না থাকেন? আপনাকে নিশ এর বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হতে হবে না। আপনি যদি ভালো নিশ এর সন্ধান পান তাহলে এর ব্যাপারে ভালোমতো চর্চা করুন। এটি আপনার সফলতায় খুব ভালোভাবে সাহায্য করবে।
আরও পড়ুন:  নিশ কি? ব্লগিং নিশ কি? নিশ কেন গুরুত্বপূর্ণ।Niche marketing

কাস্টমার আসবে যদি আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন

বেশিরভাগ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা একটি বা একাধিক ওয়েবসাইট পরিচালনা করে। প্রচুর অন্যান্য ডিজিটাল মার্কেটিং চ্যানেল এবং প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যেখানে আপনি আপনার অ্যাফিলিয়েট কার্যকলাপ প্রচার করতে পারেন। যাইহোক, যদি আপনি সবেমাত্র শুরু করেন তবে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরিতে কিছু সময় ব্যয় করতে পারেন।

এটি আপনার মার্কেটিং স্কিল বাড়াতে একটি প্রধান প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করতে পারে যার দ্বারা আপনি ধীরে ধীরে অর্থ উপার্যনের দিকে এগিয়ে যেতে পারবেন।

কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা যায়

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করার জন্য, আপনাকে এমন একটি পণ্য সনাক্ত করতে হবে যার একটি সম্ভাব্য বাজার আছে, তার জন্য ভালোএকটি নিশ বা ক্যাটাগরি যেটির সাথে আপনি পরিচিত বা সেটি উপভোগ বা সে সম্পর্কে জানতে ইচ্ছুক। তারপর, মার্চেন্টের পণ্যের পেইজ বা শপে ট্র্যাফিক ড্রাইভ করার জন্য আপনাকে ওয়েবসাইট, ব্লগ, ভিডিও, ইমেল বা অনলাইন বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে তা প্রচার করতে হবে। সংক্ষেপে বলতে গেলে এইটুকুই। প্রকৃতপক্ষে এই কাজটি সফলভাবে করা এবং এর থেকে অর্থ উপার্জন করার জন্য আপনার দরকার অনেক দৃঢ় সংকল্প এবং অধ্যবসায়।

আরও পড়ুন:  ব্লগ কি? ব্লগিং কীভাবে শিখবো? How to learn blogging?

আরও পড়ুন নিশ কি? ব্লগিং নিশ কি? নিশ কেন গুরুত্বপূর্ণ।

Leave a Comment