পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি।

প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ বিশ্বের বিভিন্ন সময়ের ভিন্ন ভিন্ন জায়গার উল্লেখযোগ্য অনেক কাঠামোর মহিমা এবং সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়েছে। তাদের মধ্যে বিশেষভাবে বলতে হয় পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য এর কথা। সুউচ্চ পিরামিড থেকে শুরু করে বিশাল মূর্তি পর্যন্ত, বিশ্বের সাতটি আশ্চর্য মানুষের কল্পনার জগৎকে আলোড়িত করেছে। এই ব্লগটিতে আমরা এই সাতটি অসাধারণ স্থাপনা নিয়ে আলোচনা করবো।

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য

গিজার মহা পিরামিড, মিশর (খ্রিস্টপূর্ব ২৫৬০)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
গিজার গ্রেট পিরামিড (Source: Wikimedia Commons)

গিজার মহা পিরামিড হল প্রাচীন বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের মধ্যে একমাত্র স্থাপনা যেটি এখন পর্যন্ত টিকে আছে। এই বিশাল কাঠামোটি ২৫৬০ খ্রিস্টপূর্বেরর কাছাকাছি সময়ে নির্মিত হয়েছিল এবং এটিকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ স্থাপত্যশৈলীর একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়। পিরামিডটি মূলত ১৪৬ মিটার লম্বা ছিল এবং এটি ফারাও খুফুর সমাধি হিসাবে বিখ্যাত। দর্শনার্থীরা এখনও এর শীর্ষে উঠতে করতে পারে এবং সেখান থেকে মরুভূমির অপরূপ দৃশ্য উপভোগ করতে পারে।

My bangla blog এর সকল পোস্ট গুগল নিউজে পেতে ভিজিট করুন এখানে Google news

ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান, ইরাক (খ্রিস্টপূর্ব ৬০০)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান

ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যানগুলি প্রাচীন বিশ্বের সাতটি আশ্চর্যের একটি ছিল। তবে এগুলোর সঠিক অবস্থান এবং দেখতে কেমন ছিল তা আজও একটি রহস্য হিসেবে রয়ে গেছে। ধারনা করা হয় যে বাগানগুলি ৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে রাজা দ্বিতীয় নেবুচাদনেজার তার স্ত্রীকে উপহার হিসাবে দেওয়ার জন্য তৈরি করেছিলেন, যিনি যিনি মরুভূমিতে সবুজের সমারোহ দেখতে চেয়েছিলেন। বাগানগুলো ছিল সুন্দর সোপানযুক্ত এবং টিকিয়ে রাখার জন্য সেখানে সেচ ব্যবস্থাও করা হয়েছিলো।

আরও পড়ুন:  চীনের মহাপ্রাচীর তৈরির ইতিহাস। The Great Wall of China

অলিম্পিয়ার জিউসের মূর্তি, গ্রীস (খ্রিস্টপূর্ব ৪৩৫)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
অলিম্পিয়ার জিউসের মূর্তি

অলিম্পিয়ার জিউসের মূর্তিটি গ্রীক দেবতা জিউসের একটি বিশাল মূর্তি ছিল এবং এটি প্রাচীন বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের একটি। মূর্তিটি ৪০ ফুট লম্বা এবং হাতির দাঁত ও সোনা দিয়ে তৈরি। এটি ৪৩৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দে তৈরি করা হয়েছিল এবং অলিম্পিয়ার জিউসের মন্দিরে রাখা হয়েছিল। এটি প্রাচীন বিশ্বের সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক কাজগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচিত।

ইফেসাসে আর্টেমিসের মন্দির, তুরস্ক (খ্রিস্টপূর্ব ৫৫০)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
ইফেসাসে আর্টেমিসের মন্দির

ইফিসাসের আর্টেমিসের মন্দিরটি গ্রীক দেবী আর্টেমিসের জন্য নিবেদিত একটি বিশাল মন্দির ছিল। মন্দিরটি প্রাচীন বিশ্বের সাতটি আশ্চর্যের একটি ছিল এবং এটি প্রায় ৫৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে নির্মিত হয়েছিল। এটি সেই সময়কার বৃহত্তম এবং সবচেয়ে আকর্ষনীয় কাঠামোগুলির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচিত ছিল। মন্দিরটি বেশ কয়েকবার ধ্বংস ও পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল, কিন্তু আজ শুধুমাত্র কয়েকটি কলাম তার পূর্বের গৌরবের প্রমাণ হিসাবে রয়ে গেছে।

হ্যালিকারনাসাসের সমাধি, তুরস্ক (খ্রিস্টপূর্ব ৩৫৩)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
হ্যালিকারনাসাসের সমাধি

হ্যালিকারনাসাসের সমাধিটি ছিল রাজা মৌসোলাসের জন্য নির্মিত একটি সমাধি এবং এটিকে প্রাচীন বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের একটি হিসাবে বিবেচনা করা হত। সমাধিটি ডিজাইন করেছিলেন গ্রীক স্থপতি আর্টেমিসিয়া এবং এটি ৩৫৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে নির্মিত হয়েছিল। এটি অপরূপ সৌন্দর্য এবং মনমুগ্ধকর খোদাইয়ের জন্য সুপরিচিত ছিল। বর্তমানে সমাধিটির শুধুমাত্র কিছু ধ্বংসাবশেষ অবশিষ্ট আছে, যা প্রাচীন বিশ্বের অপরুপ মহিমার একটি আভাস দেয়।

আরও পড়ুন:  ব্যাবিলন কোথায় অবস্থিত? ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান কে নির্মাণ করেন?

রোডসের কলোসাসগ্রীস (খ্রিস্টপূর্ব ২৮০)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
রোডসের কলোসাস

রোডসের কলোসাস ছিল গ্রীক দেবতা হেলিওসের একটি সুবিশাল মূর্তি এবং প্রাচীন বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের একটি। মূর্তিটি ১০০ ফুটেরও বেশি লম্বা যা ব্রোঞ্জ ও লোহা দিয়ে তৈরি। এটি ২৮০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের দিকে তৈরি করা হয়েছিল যা পরবর্তীতে খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতাব্দীতে একটি ভূমিকম্পে ধ্বংস হয়ে যায়।

আলেকজান্দ্রিয়ার বাতিঘর, মিশর (খ্রিস্টপূর্ব ২৮০)

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য: নাম ও ছবি
আলেকজান্দ্রিয়ার বাতিঘর

আলেকজান্দ্রিয়ার বাতিঘরটি ছিল একটি সুউচ্চ কাঠামো যা জাহাজকে নিরাপদে আলেকজান্দ্রিয়ার বন্দরে নিয়ে যেতো। বাতিঘরটি প্রাচীন বিশ্বের সাতটি আশ্চর্যের একটি ছিল এবং এটি ২৮০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে নির্মিত হয়েছিল। এটি ছিলো সেই সময়কার সবচেয়ে উন্নত প্রযুক্তির কাঠামো যা আয়না এবং লেন্সের একটি জটিল সিস্টেমের মাধ্যমে এর আলোকে বিস্তৃত করতে ব্যবহৃত হতো। দুঃখজনকভাবে বাতিঘরটি ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল এবং শেষ পর্যন্ত ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। তবে ন্যাভিগেশন এবং সমুদ্রপথের প্রযুক্তির উপর এর প্রভাব উল্লেখযোগ্য।

পৃথিবীর প্রাচীন সপ্তাশ্চর্য সৃজনশীলতা, প্রকৌশল এবং সাংস্কৃতিক মানসিকতার নিদর্শন বহন করে। গিজার বিশাল বিশাল পিরামিড থেকে আলেকজান্দ্রিয়ার দুর্দান্ত বাতিঘর পর্যন্ত এই কাঠামোগুলি তাদের সৃষ্টির হাজার হাজার বছর পরেও আমাদের কাছে বিস্ময় এবং প্রশংসা কুড়িয়েছে।

Leave a Comment