মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক: আধুনিক তুরস্কের রুপকার।

মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক আধুনিক তুর্কি ইতিহাসের একজন অন্যতম প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব। তিনি ছিলেন তুর্কি প্রজাতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম রাষ্ট্রপতি যিনি ১৯২৩ সাল থেকে ১৯৩৮ সালে তাঁর মৃত্যু পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন৷ এই ব্লগে, আমরা এই মহান নেতার জীবন, সংগ্রাম এবং তুর্কি সমাজে তাঁর অবদানগুলিকে তুলে ধরব৷

কামাল আতাতুর্ক: আধুনিক তুরস্কের রুপকার

মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক এর জীবনের প্রথমার্ধ:

কামাল আতাতুর্ক অটোমান সাম্রাজ্যে ১৮৮১ সালে সেলনিক শহরে (বর্তমানে থেসালোনিকি, গ্রীস) জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একটি ঐতিহ্যবাহী ইসলামিক স্কুলে তার প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন, পরে অন্য একটি স্কুলে ভর্তি হন।

সামরিক বিদ্যালয় থেকে স্নাতক পাশ করার পর আতাতুর্ক উসমানীয় সেনাবাহিনীতে দায়িত্ব পালন করেন, পরবর্তীতে পপদোন্নতি হয়ে একজন জেনারেল হন। তিনি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় তার সাহসিকতা এবং নেতৃত্বের জন্য ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন এবং ব্রিটিশ ও এএনজেডএসি বাহিনীর বিরুদ্ধে গ্যালিপোলির প্রতিরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

My bangla blog এর সকল পোস্ট গুগল নিউজে পেতে ভিজিট করুন এখানে Google news

মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক এর রাজনৈতিক পেশা:

যুদ্ধের পরে আতাতুর্ক একটি আধুনিক, ধর্মনিরপেক্ষ তুর্কি রাষ্ট্র গঠনের লক্ষে রাজনীতিতে যুক্ত হন। তিনি তুরস্কের স্বাধীনতা যুদ্ধের নেতৃত্ব দেন, যা ১৯১৯ সালে শুরু হয় এবং ১৯২৩ সাল পর্যন্ত চলে। এই সময়ে আতাতুর্ক এবং তার অনুসারীরা গ্রীক, ফরাসি এবং ইতালীয় বাহিনীর আক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে বিজয় লাভ করে।

আরও পড়ুন:  কনফুসিয়াস: একজন চীনা দার্শনিকের জীবনদর্শন।

১৯২৩ সালে আতাতুর্ক নতুন তুর্কি প্রজাতন্ত্রের প্রথম রাষ্ট্রপতি হন, যা একটি ধর্মনিরপেক্ষ ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়। তিনি তুর্কি সমাজের আধুনিকীকরণের লক্ষ্যে একটি নতুন আইনী কোড গ্রহণ, একটি নতুন বর্ণমালা প্রবর্তন এবং মহিলাদের অধিকারের প্রচার সহ একাধিক সামাজিক সংস্কারের সূচনা করেন।

আধুনিকায়ন ও সংস্কার:

মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক তুর্কি সমাজের আধুনিকীকরণের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিলেন এবং তিনি বিশ্বাস করতেন যে এই লক্ষ্য অর্জন সম্ভব শিক্ষা এবং সাংস্কৃতিক সংস্কারের মাধ্যমে। তিনি বিশ্বাস করতেন যে বিশ্ব মঞ্চে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য তুর্কি জনগণকে নতুন ধারণা এবং চিন্তাভাবনায় দীক্ষিত হতে হবে।

তার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সংস্কারগুলির মধ্যে একটি ছিল একটি নতুন বর্ণমালা প্রণয়ন, যা করা হয় মূলত একটি ল্যাটিন-ভিত্তিক লিপির সাথে পুরানো আরবি লিপির প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে। এতে করে সাধারণ জনগণের সাক্ষরতার হার বাড়তে থাকে যা পশ্চিমা বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে সাহায্য করে।

আতাতুর্ক নারীর অধিকারের প্রচার সহ একাধিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংস্কারও করেছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নারীদের সমান সুযোগ থাকা উচিত এবং তাদের নিজস্ব লক্ষ্য ও স্বার্থ উদ্ধারে স্বাধীন হওয়া উচিত। ফলস্বরূপ, তিনি এমন আইন প্রবর্তন করেছিলেন যা মহিলাদের ভোট দেওয়ার এবং রাজনৈতিক পদে অংশ নেওয়ার অধিকার দেয় এবং মেয়েদের ও মহিলাদের শিক্ষায় অনেক উৎসাহিত করেছিল।

আরও পড়ুন:  শায়েস্তা খান: টাকায় আট মণ চাল পাওয়া যেত যার সময়ে।

উত্তরাধিকার:

কামাল আতাতুর্কের জীবন এবং রাষ্ট্রপতিত্ব নিয়ে অগণিত বই, চলচ্চিত্র এবং তথ্যচিত্র নির্মিত হয়েছে। তাকে একজন দূরদর্শী নেতা হিসেবে স্মরণ করা হয় যিনি তুরস্ককে একটি আধুনিক, গণতান্ত্রিক এবং ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রে রূপান্তরিত করেছেন। তার সংস্কারগুলি আধুনিক তুর্কি সমাজের ভিত্তি স্থাপন করেছে এবং বিশ্বে দেশটির পরিচিতি বাড়াতেও সহায়তা করেছে।

আতাতুর্কের তুরস্কের বাইরেও অনেক নাম ডাক রয়েছে কারণ তিনি মধ্যপ্রাচ্য এবং তার বাইরে আধুনিকীকরণ ও অগ্রগতির প্রতীক হিসেবে পরিচিত। তার ধর্মনিরপেক্ষতা ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের আধুনিকায়ন এবং সারা বিশ্বের নেতাকর্মীদের অনুপ্রাণিত করেছে।

Leave a Comment