অ্যান্টার্কটিকা: পৃথিবীর শীতলতম মহাদেশ। Antarctica

অ্যান্টার্কটিকা পৃথিবীর সবচেয়ে শীতল, বায়ুপ্রবাহী এবং শুষ্কতম মহাদেশ। এর আয়তন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আকারের দেড় গুণের কম হলেও পৃথিবীর সমস্ত বরফের প্রায় ৯০ শতাংশ এই মহাদেশে রয়েছে। এটি পৃথিবীর সর্ব দক্ষিণে অ্যান্টার্কটিক সার্কেলে অবস্থিত এবং আয়তনে পৃথিবীর পঞ্চম বৃহত্তম মহাদেশ ।

অ্যান্টার্কটিকা: পৃথিবীর শীতলতম মহাদেশ

অ্যান্টার্কটিক জলবায়ু

ঋতুভেদে এই মহাদেশের আকার পরিবর্তিত হয়, কারণ উপকূল বরাবর সমুদ্রের বরফের প্রসারণের কারণে শীতকালে মহাদেশের আকারের প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। অ্যান্টার্কটিকার প্রায় পুরোটাই বরফে ঢাকা; বিস্তীর্ণ প্রান্তরের অর্ধশতাংশেরও কম বরফমুক্ত।

মহাদেশটি পূর্ব ও পশ্চিম অ্যান্টার্কটিকা নামে পরিচিত দুটি অঞ্চলে বিভক্ত। পূর্ব অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশের দুই-তৃতীয়াংশ নিয়ে গঠিত যা অস্ট্রেলিয়ার আয়তনের প্রায় সমান। অন্যদিকে, পশ্চিম অ্যান্টার্কটিকা দক্ষিণ আমেরিকার দক্ষিণ প্রান্তের দিকে প্রসারিত হিমায়িত বেশ কিছু দ্বীপের সমষ্টি, যা আন্দিজ পর্বতমালার দিকে সম্প্রসারিত। দুটি অঞ্চল ট্রান্স-অ্যান্টার্কটিক পর্বতমালা দ্বারা পৃথক হয়েছে। কখনও কখনও মহাদেশটি সম্পূর্ণরূপে বরফ দ্বারা আচ্ছাদিত হয়ে যায়।

My bangla blog এর সকল পোস্ট গুগল নিউজে পেতে ভিজিট করুন এখানে Google news

সমস্ত মহাদেশে বরফ থাকা সত্ত্বেও অ্যান্টার্কটিকাকে মরুভূমি হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে কারণ সেখানকার আর্দ্রতা খুবই কম। মহাদেশের অভ্যন্তরীণ অঞ্চলগুলিতে প্রতি বছর গড়ে ২ ইঞ্চি (৫০ মিলিমিটার) বৃষ্টিপাত হয়। উল্লেখ্য, সাহারা মরুভূমির বেশিরভাগ অংশে প্রতি বছর তার দ্বিগুণ বৃষ্টিপাত হয়। অ্যান্টার্কটিকার উপকূলীয় অঞ্চলেও আর্দ্রতা তূলনামূলক কম, বার্ষিক গড় মাত্র ৮ ইঞ্চি (২০০ মি.মি.)। মরুভূমিতে বালির ঝড়ের মতো প্রচুর তুষার ঝড় হয় এবং বাতাসের গতিবেগ ২০০ মাইল/ঘন্টা (৩২০ কি.মি/ঘন্টা) পর্যন্ত হতে পারে।

আরও পড়ুন:  ট্রান্স সাইবেরিয়ান রেলপথ: পৃথিবীর দীর্ঘতম রেলপথের ইতিহাস।

অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশ আবিস্কার 

হিমায়িত দক্ষিণের মহাদেশটি ১৮২০ সাল পর্যন্ত দেখা যায়নি। আমেরিকান সীল শিকারী জন ডেভিস প্রথম দাবি করেছিলেন যে তিনি ১৮২১ সালে অ্যান্টার্কটিকায় পা রেখেছিলেন, যদিও কিছু ইতিহাসবিদ তার দাবির বিরোধিতা করেন।

অ্যান্টার্কটিকা: পৃথিবীর শীতলতম মহাদেশ

২০ শতকের শুরুতে, অভিযাত্রীদের দুটি দল জনশূন্য অ্যান্টার্কটিক ল্যান্ডস্কেপ জুড়ে হাঁটার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিল যেখানে আগে কেউ হাঁটেনি। একটি দলের নেতৃত্বে ছিলেন নরওয়েজিয়ান অভিযাত্রী রোয়ালড আমুন্ডসেন এবং অন্যটির নেতৃত্বে ছিলেন ইংরেজ নৌ কর্মকর্তা রবার্ট স্কট। ১৪ ডিসেম্বর, ১৯১২-এ আমুন্ডসেনের দল নিজেদের বিজয়ী দাবি করার আগে দল দুইটি ৯৯ দিন দক্ষিণ মেরুতে ভ্রমণ করেছিলেন । স্কট এবং তার দল চার সপ্তাহ পরে ১৭ জানুয়ারী, ১৯১৩ তারিখে মেরুতে পৌঁছেছিলেন, কিন্তু সেখান থেকে আর ফিরে আসেনি। জীবিত একটি অনুসন্ধানকারী দল স্কট এবং তার অবশিষ্ট দুই সঙ্গীকে তাদের স্লিপিং ব্যাগের মধ্যে বরফের উপর একটি ছোট তাঁবুতে খুঁজে পেয়েছিলেন।

অ্যান্টার্কটিকায় প্রাণের উপস্থিতি

অ্যান্টার্কটিকায় প্রধান উদ্ভিদ বলতে মস, লাইকেন এবং শৈবালের প্রাচুর্যতা লক্ষ্য করা যায়। অ্যান্টার্কটিকার উপদ্বীপগুলিতে গত ৫০ বছরে ক্রমাগত তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে । বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে শীতল মহাদেশটি আরও সবুজ হয়ে উঠবে বলে বিজ্ঞানীরা আশা করছেন।

আরও পড়ুন:  নরওয়ে: নিশীথ সূর্যের দেশ বলা হয় যে দেশকে।

সবুজের অভাব এবং উভচর, সরীসৃপ এবং স্থলজ স্তন্যপায়ী প্রাণীর অনুপস্থিতি সত্ত্বেও অ্যান্টার্কটিকা এবং এর আশেপাশে বন্যপ্রাণীর প্রাচুর্যতা রয়েছে।

পেঙ্গুইন, তিমি, মাছ এবং অমেরুদণ্ডী প্রাণীর বিশাল সমাহার দেখা যায় অ্যান্টার্কটিকার উপকূল এবং হিমশীতল সমুদ্রে, বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে। পেঙ্গুইন হল সেখানকার একমাত্র উষ্ণ রক্তের প্রাণী যেটি ডিম পাড়ার সময় সময় হিমশীতল শীতের মধ্যে মহাদেশে থাকে।

অ্যান্টার্কটিকা: পৃথিবীর শীতলতম মহাদেশ

হিমায়িত মহাদেশে কোনো আদিবাসী নেই। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া, জাপান, ফ্রান্স এবং জার্মানি সহ ২০ টিরও বেশি দেশ দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক গবেষণার কাজে মানব বাসস্থান গড়ে উঠেছে। নরওয়েজিয়ান পোলার ইনস্টিটিউট অনুসারে, গ্রীষ্মকালে মহাদেশে ৭০টি গবেষণা কেন্দ্রে ছড়িয়ে থাকা গড়ে প্রায় ৪০০০ জন পরিদর্শনকারীর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। শীতকালে মানুষের সংখ্যা ১০০০ এ নেমে আসে।

অ্যান্টার্কটিকা সম্পর্কে মজার তথ্য

  • ১৯৫৯ সালে অ্যান্টার্কটিকায় এবং এর আশেপাশে অবস্থানরত বিজ্ঞানীদের সাথে ১২টি দেশ একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করে যে “অ্যান্টার্কটিকা চিরতরে সম্পুর্ণ শান্তিপূর্ণ উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হবে এবং আন্তর্জাতিক বিরোধের কোনো বস্তুতে পরিণত হবে না।” তারপর থেকে, ৩৮ টিরও বেশি দেশ সেখানে স্বাক্ষর করেছে যা এখন অ্যান্টার্কটিক চুক্তি নামে পরিচিত ।
  • ক্যাথরিন মিকেলসন, একজন নরওয়েজিয়ান নারী যিনি ১৯৩৫ সালে অ্যান্টার্কটিকা ভ্রমণকারী প্রথম মহিলা ছিলেন।
  • অ্যান্টার্কটিকার একটি অংশ দাবি করার প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে আর্জেন্টিনা একটি গর্ভবতী মহিলাকে মহাদেশে পাঠিয়েছিল। জানুয়ারী, ১৯৭৯ সালে এমিল মার্কো পালমা ছিলেন অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশে জন্মগ্রহণকারী প্রথম সন্তান।
  • অ্যান্টার্কটিকার আয়তন প্রায় ৫.৪ মিলিয়ন বর্গ মাইল (১৪ মিলিয়ন বর্গ কিমি)।
  • অ্যান্টার্কটিকায় অন্তত দুটি সক্রিয় আগ্নেয়গিরি রয়েছে। সর্বোচ্চ উচ্চতার মাউন্ট ইরেবাস, যা একটি স্থায়ী হ্রদ সৃষ্টি করেছে। অন্যটি অ্যান্টার্কটিক উপদ্বীপের অদূরে ডিসিপশন আইল্যান্ডে অবস্থিত। যদিও ১৯৬৭ এবং ১৯৬৯ সালে অগ্ন্যুৎপাতের কারণে সেখানে বৈজ্ঞানিক কেন্দ্রগুলি ক্ষতিগ্রস্ত করেছিল, তবুও দ্বীপটি পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয়।
  • আপনি যদি অ্যান্টার্কটিকার বাতাসে ফুটন্ত জল নিক্ষেপ করেন তবে তা তাতক্ষণিকভাবে বাষ্প হয়ে যাবে।
  • সেখানকার জীবাশ্মগুলি বিজ্ঞানীদের ধারণা দেয় যে লক্ষ লক্ষ বছর আগে অ্যান্টার্কটিকায় অনেক উষ্ণ জলবায়ু ছিল এবং সেখানে চিরসবুজ বন এবং বিভিন্ন ধরণের প্রাণীর বসবাস ছিল।
  • অ্যান্টার্কটিকার বরফের চাদর গলে গেলে সারা বিশ্বের মহাসাগরগুলো ২০০ ফুট থেকে ২১০ ফুট (৬০ থেকে ৬৫ মিটার) বৃদ্ধি পাবে।

Leave a Comment